শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০১:৪৬ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
বিস্ফোরক আইনের মামলায় কুলিয়ারচর বিএনপি’র ১৩ নেতাকর্মীর জামিন নামঞ্জুর ‘মার্কিন দূতাবাসে নালিশের পর নালিশ করেও লাভ হয়নি’ কুলিয়ারচরে বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতি’র নির্বাচন-২০২২ অনুষ্ঠিত চাটখিলে ব্রাজিল সমর্থকদের ১৮০ ফুট পতাকা নিয়ে মিছিল টেকসই উন্নয়নে- নবায়ন যোগ্য জ্বালানী” প্রতিপাদ্যে আইডিইবি’র ৫২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ঘিওরে নানা আয়োজনে জাতীয় সমবায় দিবস পালিত চাটখিলে পেট্রোল ঢেলে দোকান পোড়ানোর অভিযোগ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম মেধা তালিকা প্রকাশিত নবীগঞ্জে ইমামবাড়ী রাজরাণী সুভাগিনী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে নিয়োগ কমিটিতে অনিয়মের অভিযোগ ফ‌লোআপঃ বন মামলা থে‌কে রেহায় পে‌তে লাখ টাকার মিশ‌নে পাহাড়‌খে‌কো প্রবাসী সায়মন !

দ্রোহের কবি শহীদুল্লাহর আজ জন্মদিন।

সকালের কন্ঠ
  • আপডেটের সময় : সোমবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২২
  • ৯৭ Time View

কামরুজ্জামান শিমুল বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধি:

“ভালো আছি ভালো থেকো” গানের জনক রুদ্র মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ। মূল বাড়ি বাগেরহাট জেলার মোংলা উপজেলার মিঠেখালি গ্রামে হলেও জন্ম পিতার কর্মস্থল বরিশাল জেলার আমানতগঞ্জ রেডক্রস হাসপাতালে। ১৯৫৬ সালের এই দিনে জন্ম নেওয়া কবির বাবার নাম ডাঃ শেখ ওয়ালিউল্লাহ ও মায়ের নাম শিরিয়া বেগম। উচ্চ মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্ম নেওয়া তারুন্যের দীপ্ত প্রতীক কবি রুদ্র মুহম্মদ শহিদুল্লার ২১শে জুন ৩০ তম মৃত্যু বার্ষিকী। ১৯৯১ সালের এই দিনে লক্ষ কবিতা প্রেমিদের কাঁদিয়ে মাত্র ৩৪ বছর বয়সে চির বিদায় নিয়ে চলে যান না ফেরার দেশে।

১৯৭৪ সালে চার বিষয়ে লেটার মার্ক্স নিয়ে এসএসসি পাস করেন ঢাকা ওয়েস্ট অ্যান্ড হাইস্কুল থেকে। ঢাকা কলেজ থেকে ১৯৭৬ সালে এইচএসসি পাস করে ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে। ১৯৮০ সালে সম্মানসহ বিএ এবং ১৯৮৩ সালে এমএ ডিগ্রি লাভ করেন মেধাবী রুদ্র মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ। বহুল আলোচিত নারীবাদী লেখিকা তসলিমা নাসরিনকে ১৯৮১ সালের ২৯ জানুয়ারি বিয়ে করেন। ১৯৮৮ সালে তাদের দাম্পত্য জীবনের অবসান ঘটে।

প্রতিবাদী কবি হিসেবে খ্যাত রুদ্র মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ ১৯৭৫ সালের পরের সবকটি সরকার বিরোধী ও স্বৈরাচারবিরোধী সংগ্রামে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধ, দেশাত্মবোধ, গণআন্দোলন, ধর্মনিরপেক্ষতা, ও অসাম্প্রদায়িকতা তার কবিতায় বলিষ্ঠভাবে উপস্থাপিত হয়েছে। স্বৈরতন্ত্র ও ধর্মের ধ্বজাধারীদের বিরুদ্ধে তার কণ্ঠ ছিল উচ্চকিত। তিনি ছিলেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট ও জাতীয় কবিতা পরিষদ গঠনের অন্যতম উদ্যোক্তা এবং জাতীয় কবিতা পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য।

কবি রুদ্র মুহম্মদ শহিদুল্লাহ ৩৪ বছরের স্বল্পায়ু জীবনে সাতটি কাব্যগ্রন্থ ছাড়াও গল্প, কাব্যনাট্য এবং অর্ধশতাধিক গান রচনা ও সুরারোপ করেছেন। তিনি ১৯৮০ সালে মুনীর চৌধুরী স্মৃতি পুরস্কার লাভ করেন।
‘চলে যাওয়া মানে প্রস্থান নয়- বিচ্ছেদ নয়, চলে যাওয়া মানে নয় বন্ধন ছিন্ন-করা আর্দ্র রজনী। মোংলার মিঠাখালির বুকে শুয়ে আছেন কবিতার এই জনক। জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে শত শত কবি প্রেমিক ফুল নিয়ে হাজির হয়েছেন তার সমাধিস্থলে।

শেয়ার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও
  • © All rights reserved shokalerkatho© 2023
Powered Sokaler Kontho
themesba-lates1749691102